•  Mobile: +8801783043161  E-mail: contact@ourrangpur.com
  • BlogNewsRangpurRangpur bdআমাদের রংপুরগঙ্গাচড়া

    ভুতুড়ে অবস্থা রংপুর গঙ্গাচড়া টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসের

    ভুতুড়ে অবস্থা রংপুর গঙ্গাচড়া টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসের

    ডিজিটাল দেশে আধুনিকতার ছোঁয়ায় ভুতুড়ে অবস্থা হয়েছে একসময়কার লোকে লোকারণ্য গঙ্গাচড়া উপজেলা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসের। মোবাইলের আবর্তে চাপা পড়েছে টেলিফোন। কেউ আর আসে না ফোন করতে।

    জানা যায়, মোবাইল ফোন আসার আগে উপজেলা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে লোকের জটলা লেগেই থাকত। টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে লোকজন আসত শহরে অথবা বিদেশে বসবাসরত আত্মীয় স্বজনের সাথে অতি প্রয়োজনীয় কথা বলতে। আবার উপজেলার সংবাদকর্মীসহ লোকজন যেত ফ্যাক্সের মাধ্যমে জরুরীবার্তা পাঠানোর জন্য ১২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত রংপুর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে। প্রযুক্তির উন্নয়ন ও মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক সারাদেশে ছড়িয়ে যাওয়ার সাথে সাথে সবকিছুই এখন মানুষের হাতের মুঠোয়। কিশোর থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সকলের হাতে মোবাইল ফোন। এখন আর টেলিফোন অফিসে গিয়ে লাইন ধরে ফোন করতে হয় না। সেই সাথে মোবাইল ফোন কিংবা কম্পিউটারের মাধ্যমে ইমেইলে জরুরীবার্তা মুহূর্তেই পৌঁছে যাচ্ছে নির্দিষ্ট স্থানে। আর এ কারণেই ভুতুড়ে অবস্থা হয়েছে টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসের।

    উপজেলায় কর্মরত সিনিয়র সাংবাদিক আব্দুল মজিদ, জাকিরুল ইসলাম মন্টুসহ অনেকে বলেন, আগে আমরা খবর হাতে লিখে পোস্ট অফিস কিংবা কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পত্রিকা অফিসে পাঠাতাম। জরুরী খবর হলে রংপুর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে গিয়ে লাইন ধরে ফ্যাক্সের মাধ্যমে খবর পাঠানো হত। সে সময় খবর পাঠাতে অনেক কষ্ট করতাম।

    উপজেলার থানা পাড়ার বাসিন্দা প্রতাপ রায়, সুরেশ রায়সহ অনেকে বলেন, মোবাইল আসার আগে জরুরী প্রয়োজনে আত্মীয় স্বজন, কিংবা যে কোন অফিসে কথা বলতে গেলে উপজেলা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে যাওয়া লাগত। সেখানে কথা বলার জন্য অনেক লোকের ভিড় জমে থাকতো, কথা বলার সিরিয়াল পেতে অনেক সময় লাগতো। প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে টেলিফোন অফিস এখন আমাদের কাছে শুধুই স্মৃতি। উপজেলা টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসের লাইনম্যান সাজেদুল করিম ও রফিকুল ইসলাম বলেন, মোবাইল ব্যবহারের সাথে সাথে টেলিফোন ব্যবহার কমে গেছে। মোবাইল ব্যবহার শুরুর আগে উপজেলা সদরের বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ অফিসে ২ শত ৪০ টি টেলিফোন সংযোগ ছিল, বর্তমানে রয়েছে ৫৯ টি। এর প্রায় সবই সরকারি অফিসে।

    সুত্রঃ গংগাচড়া নিউজ 

    Leave a Reply

    Close